মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা দুর্যোগ পরিকল্পনা

বাংলাদেশ বিশ্বের দুর্যোগপূর্ণ দেশগুলির মধ্যে অন্যতম। সূদুর অতীতকাল থেকেই এ দেশের জনগণ নানাবিধ প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে মোকাবেলা করে আসছে। দুর্যোগগুলির মধ্যে কতগুলো ধীর কর্মক্ষমতা সম্পন্ন, পৌনঃপুনিক এবং কতগুলি রয়েছে আকস্মিক, ধ্বংস ক্রিয়ায় প্রগাঢ় ও বৈশিষ্ট্যে বিপর্যয়কারী। বহুমূখী দুর্যোগের জন্য দেশটির ভৌগলিক অবস্থান অনেকটা দায়ী। ভৌগোলিক অবস্থান, আবহাওয়া ও নদী মাতৃকার কারণে এ দেশ বন্যা, অতিবৃষ্টি, টর্নেডো/ ঘূর্ণিঝড়, খড়া, কালবৈশাখী, শৈত্য প্রবাহ, সামুদ্রিক জলোচ্ছাস, ও অঞ্চল ভেদে মঙ্গা, পাহাড় ধ্বস, লবণাক্ততা, ম্যালেরিয়া, বন্যহাতি আক্রমণসহ নানাবিধ আপদে ঝুঁকিপূর্ণ। অবস্থানগত কারণে ভুমিকম্প, সুনামী এদেশের জন্য বড় আপদ হিসেবে দেখা দিতে পারে। তাছাড়া পাহাড় ও নদীমাতৃক হওয়ায় প্রতিবছর নদী ভাঙ্গন, পাহাড়ী ঢলে লাখ লাখ মানুষ জানমাল, বসতভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়ছে। এছাড়া মানব সৃষ্ট নানা আপদ জন জীবনকে প্রতিনিয়ত আতংকগ্রস্ত করে রাখছে। এ সবের মধ্যে বৃক্ষনিধন, পাহাড় কাটা, মাটিকাটা, ইটভাটার দূষণ, রাসায়নিক সার ব্যবহার, তামাক চাষ, বার্ড ফ্লু প্রভৃতি আপদে জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়। এতে করে জাতীয় জীবন তথা অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব পড়ে থাকে।

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ সরকার ইউএনডিপি, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, ইউকে এইড, অস্ট্রেলিয়ান এইড, সুইডেন ও নরওয়ে এ্যাম্বাসি’র সহায়তায় সমন্বিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মসূচীর মাধ্যমে দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাস করার লক্ষ্যে এক যুগান্তকারী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এই কর্মসূচির আওতায় জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা (জেলা বা উপজেলার আর্থ-সামাজিক অবস্থা বা অবস্থান, আবহাওয়া ও জলবায়ু পরিস্থিতি, আপদ, দুর্যোগ, সক্ষমতা, বিপদাপন্নতা, ঝুঁকি চিহ্নিত, ঝুঁকি হ্রাসে করণীয় উপায়সহ বিভিন্ন তথ্য) প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে এ কর্মসূচীর প্রণয়নকৃত কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে দুর্যোগে ঝুঁকি হ্রাসে সূদুরপ্রসারী অবদান রাখবে বলে মনে করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রিসোর্স ইন্টিগ্রেশন সেন্টার (রিক) কে কক্সবাজার জেলার রামু  উপজেলার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা প্রণয়নের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে রিক এর কর্মীদের নিষ্ঠা ও অক্লান্ত পরিশ্রম পরিকল্পনা প্রণয়নে যথার্থ অবদান রেখেছে। ফলে উপজেলার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে একটি বাস্ত-বসম্মত পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে সক্ষম হয়েছে। এই পরিকল্পনায় দুর্যোগ প্রতিরোধে নদী ভাঙ্গন রোধ, প্রয়োজনীয় বাঁধ নির্মাণ, সামাজিক বনায়ন, মজবুত ও দুর্যোগ সহনশীল অবকাঠামো তৈরী, নলকূপ স্থাপন, আবহাওয়া ও জীববৈচিত্র্য রক্ষার্থে নিবিড় বনায়ন প্রভৃতি ঝুঁকি হ্রাসকল্পে কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে, যা বাস্তবায়নের মাধ্যমে জনগণের জীবন-জীবিকার নিশ্চয়তা ও সহায় সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা প্রণয়নে ইউনিয়ন ও উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি, উপজেলা প্রশাসন এবং উপজেলাবাসীর  প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।

সংযুক্তি

Ramu_Upazila_DM_Bangla.pdf Ramu_Upazila_DM_Bangla.pdf
Ramu_Upazila_DM_Plan.pdf Ramu_Upazila_DM_Plan.pdf